.

Trusted news blog of the World.

কাজান স্টেডিয়াম যেন তারকা বিদায়ের এক মঞ্চের নাম


ফেবারিট আর তারকাবধের বিশ্বকাপ হিসেবেই স্মরণীয় হয়ে থাকবে রাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮ ? একে একে তারকা হারিয়েছে এবারের আসর। জার্মানি, স্পেন, পর্তুগাল, আর্জেন্টিনা  এর পর এবার ব্রাজিল। এই সেই ব্রাজিল, যারা বিশ্বকাপে এসেছিল সবচেয়ে ভারসাম্যপূর্ণ ভালো একটা দল নিয়ে।


জার্মান দিয়ে শুরু করে রাশিয়া বিশ্বকাপে অনেক ‘অঘটন’ এর সাক্ষী হয়ে রইল কাজান স্টেডিয়াম। এই স্টেডিয়ামে ম্যাচ খেলেই বিদায় নিতে হয়েছে এবারের বিশ্বকাপের তিন ফেবারিট দলকে; সবার মনে তাই একই প্রশ্ন কাজান কি তবে সত্যিই তারকাদের বিদায়ের মঞ্চ? কাজান কি তবে অভিশপ্ত?

ব্রাজিল এবার বিশ্বকাপে এসেছিল সবচেয়ে ভারসাম্যপূর্ণ দল নিয়ে এ নিয়ে কোন সন্দেহ নাই। যে দলের সাইড বেঞ্চের খেলোয়াড় দিয়েই আরেকটি একাদশ করা যায়।

যে দলের কোচ তিতে সবার মন জিতে নিয়েছিলেন ব্রাজিলের জার্সিতে, সেই হলুদ নির্যাস আবার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য। সেই ব্রাজিল এবার হোঁচট খেল বেলজিয়ামের কাছে; বিশ্বকাপে যাদের ইতিহাস নেই, হয়তো আছে শুধু ভবিষ্যৎ!

বড় তারকাদের পতন-মিছিলে এবার যোগ হলো নেইমারের নাম। থাকবেন কুতিনহো, জেসুস, পাওলিনহো, ফিরমিনো, কস্তা…কত কত নাম!  ক্লাব ফুটবলে প্রত্যেকেই নিজ আলোতে উজ্জ্বল। পেছন ফিরে তাকিয়ে এই তারকাদের মনে পড়বে শেষ দৃশ্যটাই। তাড়া করে ফিরবে একটি নাম: কাজান!

তারকা বিদায়ের শুরুটা জার্মানিকে দিয়ে। এফ গ্রুপের শেষ ম্যাচ। জার্মানির প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া!  গ্রুপের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ কোরিয়াকে হারালেই শেষ ষোলোর টিকিট পাকা গতবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের; সেই ম্যাচেই অঘটন!

সহজ সমীকরণ নিয়ে মাঠে নেমে প্রথমার্ধে দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ০-০ ব্যবধানে আটকে যায় জার্মানি। এরপর ৯০ মিনিট শেষেও কাক্ষিত গোলের দেখা পেল না ন্যুয়েররা। পরে ৯২ ও ৯৬ মিনিটে দুটি গোল হজম করে বসে জার্মানি। শেষ ম্যাচ হেরে গ্রুপের লাস্ট বয় হয়ে কাজানের কাজান এরিনা থেকে বিদায় জার্মানির।

রাশিয়া বিশ্বকাপ তাই যেমন মনে থাকবে, মনে থাকবে এই কাজানের স্টেডিয়ামটির কথাও।

এরপর এই কাজানে বিদায় নিয়েছে বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট আর্জেন্টিনা।  না, ফ্রান্স পরিষ্কার ফেবারিট ছিল। শক্তিতে এগিয়ে ছিল তারাই;  কিন্তু তবু, মেসির মতো একজন মহাতারকাকে হারিয়ে ফেলার শোকগাথা রচিত হয়েছিল এ মাঠেই।

শেষ ষোলোর লড়াইয়ে ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে মেসিদের হার এই কাজান স্টেডিয়ামেই। সেই ম্যাচে দ্বিতীয়ার্ধে ১১ মিনিটে ফ্রান্সের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের সামনে মাথা নোয়াতে বাধ্য হয় আর্জেন্টিনা।

৫৭-৬৮ এই এগারো মিনিটেই আর্জেন্টিনার ডিফেন্স চিড়ে তিন গোল দেয় ফ্রান্স। সেদিনে কাজান থেকে রাশিয়া অভিযান শেষ করেছিলেন মেসিরা।

সেই কাজান আজ সাক্ষী হলো বিশ্বকাপের আরেক মহা অঘটনের; বেলজিয়াম হয়তো ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে গা ঘেঁষাঘেঁষি করে আছে ব্রাজিলের, কিন্তু ইতিহাস, রেকর্ড, ঐতিহ্য ছিল ব্রাজিলের পক্ষে।

আজ ব্রাজিল খেলেছেও দাপট নিয়ে। কিন্তু ফুটবল শুধু গোল করার খেলা নয়। গোল না খাওয়ার খেলাও। ব্রাজিলের একের পর এক আক্রমণ আজ নিষ্ফলা হয়ে গেছে বেলজিয়ামের রক্ষণে এসে।

আর মহাপ্রাচীর হয়ে ছিলেন একজন। থিবো কোর্তোয়া । কী অবিশ্বাস্য সেভগুলোই না করলেন! যেন একা হারিয়ে দিলেন নেইমারকে!

এরপর থেকে ফুটবল–সমর্থকেরা খোঁজ নিতে চাইবেন, এই কাজানে আর কী কী ম্যাচ আছে। এরপর কী নাটক জমিয়ে রেখেছে কাজান বাজান! বিশ্বকাপে টিকে আছে যে ছয়টি দল, তাদের সমর্থকদের জন্য আপাতত সুখবর। এবারের বিশ্বকাপে কাজানে আর কোনো ম্যাচ নেই!

আরো জানুন:

(১) শৈল্পিক ফুটবলের কাছে ব্রাজিলিয়ান সাম্বা ছন্দের অপমৃত্যু !!!!

(২) রাশিয়া বিশ্বকাপেও ব্রাজিলিয়ান সমর্থকদের দীর্ঘশ্বাস।

(৩) রোনালদোকে ছাপিয়ে দ্রুততম ৬০০ গোল এখন মেসির

 

Your SEO optimized title page contents