SIKDER ONLINE

Trusted news blog of the World.

শহীদ মিনার যখন গন-শৌচাগার

২১শে ফেব্রুয়ারী বাঙ্গালী জাতী ও  এই জাতির বাংলা ভাষাভাষি মানুষের এক গৌরব গাথা ইতিহাসের প্রতিচ্ছবি; “আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো ২১শে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি”।

২১শে ফেব্রুয়ারি আমাদের দেশের সকল বাঙ্গালী জাতির একটি গৌরবের দিন; এই দিনে বাঙ্গালী জাতি সেই ভাষা শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনারে গিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলী জানায়।

যারা দেশ ও জাতির অধিকার বাংলা ভাষার জন্য অকাতরে প্রাণ দিয়েছেন; তাদের স্মৃতি-স্বারক সম্বলিত শহিদ মিনার কিন্তু সেই শহীদ মিনারের যদি কোন মর্যাদা এই সমাজ তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের চোখে দেখে, সেখানে পায়খান-প্রসাবখানার মত কাজ করে তবে সেই শহিদ মিনারের কিই-বা মর্যাদা থাকে?

ঠিক দির্ঘদিন যাবত এমনটিই ঘটে চলেছে সীমাখালী স্কুল এন্ড কলেজের শহিদ মিনারকে ঘিরে; সীমাখালী স্কুল মার্কেটের উত্তর পার্শ্বে অবস্থিত শহীদ মিনারটি ঘুরে দেখা যায় শহীদ মিনারের অবস্থা এমনই নোংরা যে, কোন ভাষায় বলে বোঝানো প্রায় অসম্ভব।

সেখানকার অবস্থা দেখলে যে কোন ইতিহাসচেতা ব্যক্তিরই বুকের ভিতরে খাঁ-খাঁ করে উঠবে; শহীদ মিনারের চারিদিকে সীমাখালী বাজারের যত নোংরা আবর্জনা ফেলা হয়;  স্কুল কলেজের ছেলেরা ও বাজারের সকল পথচারীরা শহীদ মিনারের গায়ে প্রসাব ও পায়খানার জায়গা নির্দিষ্ট করে নিয়েছে;

দেখে মনে হয় শহীদ মিনার যেন উন্মুক্ত প্রসাব পায়খানার স্থান হয়ে দাড়িয়েছে; এ বিষয়ে স্থানীয় জন-সাধারণের সাথে কথা বললে তারা হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ এর সাথে বলেন, সীমাখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম স্কুলে আসেন ও চলে যান; শহীদ মিনারটি দেখেও না দেখার ভান করেন।

তারা আরও বলেন শালিখা থানার সীমাখালী স্কুল এন্ড কলেজের ১৫টি দোকান ঘর ও ১টি গোহাটা থেকে কাড়ি কাড়ি টাকা আয় করলে; দৃশ্যমান কোন উন্নয়নমূলক কাজ আজও চোখে পড়েনি।

জন-সাধারণ প্রশ্ন রেখে বলেন, এই আয়ের টাকাগুলো কোথায় ব্যায় হয়? এব্যাপারে ২১শে ফেব্রুয়ারির পূর্বেই শালিখা থানা প্রশাসন অ-রক্ষিত শহীদ মিনারটি দ্রুত সংরক্ষন করে সকল ভাষা শহীদদের আত্তার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবেন বলে আশা প্রকাশ করে স্থানীয় জনগন।

আরো জানুন:

(১)  প্রিয়া প্রকাশের পারিশ্রমিক

(২) মাল মুহিতের অবসর

Please enable JavaScript to view the comments powered by Disqus.