.

Trusted news blog of the World.

জেডটিইর দুর্দিনে লাভবান হবে নকিয়া ও এরিকসন






নিজস্ব প্রতিবেদক:  চীনভিত্তিক টেলিযোগাযোগ সরঞ্জাম নির্মাতা জেডটিইর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আগামী সাত বছর মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো জেডটিইর কাছে কোনো ধরনের সরঞ্জাম ও সফটওয়্যার বিক্রি করতে পারবে না।

এ নিষেধাজ্ঞার কারণে জেডটিইর ব্যবসায় সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়বে। এরই মধ্যে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি; তবে প্রতিদ্বন্দ্বী নকিয়া ও এরিকসন এ নিষেধাজ্ঞার ফলে লাভবান হবে বলে মনে করা হচ্ছে। খবর রয়টার্স।

বৈশ্বিক টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম খাতে একসময় দ্বৈত আধিপত্য ছিল নকিয়া ও এরিকসনের; সংশ্লিষ্ট খাতে নতুন প্রতিদ্বন্দ্বীর প্রবেশ এবং নতুন ব্যবসা মডেলের সঙ্গে তাল মেলাতে ব্যর্থ হওয়ায় পিছিয়ে পড়ে দুই প্রতিষ্ঠানই।

অন্যদিকে চীনা ব্র্যান্ড হুয়াওয়ে এবং জেডটিই ব্যবসা কৌশল ও আগ্রাসী মূল্যনীতির কারণে খুব অল্প সময়ে টেলিযোগাযোগ সরঞ্জাম খাতে আধিপত্য বিস্তার করে।






টেলিযোগাযোগ সরঞ্জামের গুরুত্বপূর্ণ বাজার ইউরোপ ও আমেরিকা। ক্রমবর্ধমান দুই বাজারে নকিয়া ও এরিকসনকে হটিয়ে উল্লেখযোগ্য শেয়ার নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে জেডটিই। চীনা প্রতিষ্ঠানটির কারণে দুই বাজারে চাপে রয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বীরা।

গত বছরও ইউরোপ ও আমেরিকার বাজারে চার গুণ বার্ষিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করে জেডটিই; বাজার আধিপত্য ধরে রাখতে আগ্রাসী মূল্যনীতি অনুসরণ করছে প্রতিষ্ঠানটি; এ কারণে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়ছে নকিয়া ও এরিকসন; এক্ষেত্রে জেডটিইর ওপর আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে ব্যবসায় সুযোগ হিসেবে দেখছে নকিয়া ও এরিকসনের অংশীদাররা।

তারা এরই মধ্যে দুই প্রতিষ্ঠানকে এ ব্যবসায় সুযোগ কাজে লাগানোর বিষয়ে সতর্ক করেছে।

মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞার কারণে জেডটিইর ভবিষ্যত্ ব্যবসা অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। সাত বছর বেশ দীর্ঘ সময়। যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে প্রয়োজনীয় চিপ ও সফটওয়্যার সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেলে পণ্য উন্নয়নে পিছিয়ে পড়বে জেডটিই।

চীনা নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম নির্মাতারা পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি ফাইভজি উন্নয়নে নেতৃত্ব দিচ্ছে; জেডটিই এরই মধ্যে কয়েকটি টেলিকম প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মিলে ফাইভজি নিয়ে পরীক্ষা চালিয়েছে; চলতি সপ্তাহে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রতিষ্ঠানটির ফাইভজি নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি উন্নয়ন কার্যক্রমও স্থগিত হয়ে পড়বে।

চলতি বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরু থেকে বিশ্বব্যাপী ফাইভজি নেটওয়ার্ক হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু হবে। বহুজাতিক টেলিকম প্রতিষ্ঠানগুলো এরই মধ্যে নেটওয়ার্ক হালনাগাদ ব্যয় এবং পরিকল্পনা ঠিক করেছে।

এর ফলে নেটওয়ার্ক সরঞ্জামের ব্যাপক চাহিদা দেখা দেবে। খাতটি থেকে নকিয়া ও এরিকসনের ব্যবসায় সুযোগ সৃষ্টি হলেও জেডটিইর জন্য তা অশনিসংকেত হয়ে দেখা দিয়েছে; নিষেধাজ্ঞার কারণে গত প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ স্থগিত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।




টেলিকম পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নর্থস্ট্রিমের প্রধান বেন্ট নর্ডস্ট্রোম বলেন, মার্কিন সরবরাহকারীদের বিকল্প খুঁজে নেয়া এবং বিভিন্ন পণ্যের নকশা পরিবর্তনে জেডটিইর কয়েক মাস পর্যন্ত সময় লেগে যাবে।

বিশেষ করে, অপটিক্যাল এবং মোবাইল গিয়ার তৈরির ক্ষেত্রে চিপের ওপর ভিত্তি করে নকশা করতে হয়; বিকল্প সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম এবং সফটওয়্যার ব্যবহারের ক্ষেত্রে পণ্যের নকশায় পরিবর্তন আনতে হবে জেডটিইকে; এটা যেমন ব্যয়বহুল, একইভাবে সময়সাপেক্ষ বিষয়।

বৈশ্বিক টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম খাতের শীর্ষ তিন প্রতিষ্ঠান হলো চীনভিত্তিক হুয়াওয়ে, এরিকসন ও নকিয়া। বাজারটির সিংহভাগ রাজস্ব এখন হুয়াওয়ে ও নকিয়ার দখলে।

তবে নেটওয়ার্ক গিয়ার বাজারে জেডটিই এবং দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক স্যামসাংয়ের কারণে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখে পড়তে হচ্ছে বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

বিশ্লেষকদের তথ্যমতে, বৈশ্বিক নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম খাতে এরিকসনের আগেই সাফল্যের ধারায় ফিরবে ফিনল্যান্ডভিত্তিক নকিয়া; কারণ প্রতিষ্ঠানটি মোবাইল ব্যবসা বিভাগ বিক্রির পর এখন নেটওয়ার্ক সরঞ্জাম খাতে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।



আরো জানুন:

(১) ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৮-এর এস পেনে

(২) একজন আয়মান সাদিক ও তার টেন মিনিট স্কুল



Your SEO optimized title page contents